VOIP কি? VOIP এর সুবিধা কি কি?

আমরা সবাই সাধারন সিম কার্ড ব্যবহার করি মোবাইলে কথা বলার জন্য। এই সিম কার্ডে টাকা রিচার্জ করে কথা বলতে হয়। মানে সিম কার্ডে যতক্ষন ব্যালেন্স থাকবে ততক্ষন কথা বলা যাবে। কিন্তু আপনারা কি জানেন সিম কার্ডের ব্যালেন্স ছাড়া, এমন কি সিম কার্ড ছাড়াই দেশে বা বিদেশে কথা বলা যায়? VOIP প্রযুক্তির সাহায্যে আপনি শুধু মাত্র ইন্টারনেট ব্যবহার করে বিশ্বের যেকোন প্রান্তে কথা বলা যায় খুব সহজেই। তো চলুন জেনে নেই VOIP কি এবং VOIP এর সুবিধা কি কি।

VOIP কি?

VOIP এর পূর্ণ অর্থ হল Voice Over Internet Protocal. ইন্টারনেটের মাধ্যমে টেলিযোগাযোগ তথা একে অন্যের সাথে কথা বলার নামই হল VOIP। VOIP তে মূলত প্যাকেট আকারে ডেটা আদান প্রদান করা হয়। ইন্টারনেটের মাধ্যমে দেশে ও বিদেশে কম খরচে কথা বলার জনপ্রিয় প্রযুক্তি হল VOIP। VOIP এর ক্ষেত্রে দূরত্ব কোন প্রভাব ফেলে না। দেশ হোক বা বিদেশ, সব জায়গাতেই সমান খরচ হয়। অর্থাৎ, স্বল্প পরিমান ডাটা দিয়েই দীর্ঘ সময় কথা বলা যায় VOIP এর মাধ্যমে।
বর্তমানে VOIP অনেক সহজলভ্য হয়ে গেছে। আমরা অনেকেই VOIP অনেক আগে থেকেই ব্যবহার করে আসছি। VOIP এর মাধ্যমে কথোপকথনের জন্য প্রয়োজন কম্পিউটার বা মোবাইল এবং একটি সক্রিয় ইন্টারনেট সংযোগ। দুই প্রান্তের ব্যক্তিকে একই সফটওয়্যার ব্যবহার করতে হবে। বর্তমানে বহুল প্রচলিত সফটওয়্যার গুলি হলঃ স্কাইপি, ফেসবুক মেসেন্জার, হোয়াটসঅ্যাপ, ভাইবার, ইমো, গুগল ডুয়ো, গুগল হ্যাংআউট, লাইন, ট্যাংগো ইত্যাদি। এই সফটওয়্যার গুলো ব্যবহার করে যে কেউ খুব সহজেই ফ্রি একাউন্ট খুলতে পারবে এবং বার্তা আদান প্রদান ও কথোপকথন করতে পারবে। এছাড়াও অনেক সফটওয়্যারে নির্দিষ্ট কিছু অর্থের বিনিময়ে সাধারন ল্যান্ডফোন এবং মোবাইল ফোনেও কথা বলার সুযোগ দিয়ে থাকে।
VOIP এর সুবিধাঃ

  •  বিশ্বের যে কোন জায়গায় নিমিষেই কথা বলা যায়।
  • দেশ হোক কিংবা বিদেশ, সব জায়গাতেই সমান ডাটা খরচ হয়।
  • অনেক জন এক সাথে কনফারেন্সে কথা বলা যায়।
  • বেলেন্স শেষ হওয়ার চিন্তা করতে হয় না।
  •  নির্দিষ্ট কোন মোবাইল নম্বরের প্রয়োজন হয় না।

তো আজকের মত এই পর্যন্তই। VOIP সম্পর্কে কোন প্রশ্ন থাকলে কমেন্টে অথবা আমাদের ফেইসবুক পেজে ইনবক্স করে জানাতে পারেন। আবার দেখা হবে নতুন কোন পোস্টে, নতুন কোন টপিক নিয়ে। সবাই ভাল থাকবেন সুস্থ থাকবেন। আল্লাহ হাফেজ।

Leave a Comment